রংপুরে বাড়িতে ঢুকে আইনজীবীকে হত্যা

রংপুরে প্রবীণ আইনজীবী আসাদুল ইসলামকে দিন-দুপুরে বাড়িতে ঢুকে হত্যা করা হয়েছে। এ ঘটনায় এলাকাবাসী একজনকে আটক করে পুলিশে দিয়েছে। শুক্রবার জুমআর নামাজের সময়ের রংপুর মহানগরীর মডার্ন মোড় সংলগ্ন বারো আউলিয়া গ্রামে এই ঘটনায় ওই এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

নিহত আইনজীবী আসাদুল ইসলামের মুহুরী জানান, করোনায় পরিবারকে গ্রামে পাঠানোর কারণে আমার বাড়িতেই খাওয়া-দাওয়া করতেন আইনজীবী আসাদুল। শুক্রবার সকাল দশটার দিকে আমার সাথে তিনি মুরগী কিনে আমার বাসায় রান্না করতে বলেন। দুপুর ১টা ১১ মিনিটে আমাকে ফোন দিয়ে বলেন, জুমআর নামাজ শেষে তোমার বাসায় গিয়ে খাওয়া-দাওয়া করব। ওই সময় তিনি মসজিদে যাওয়ার জন্য অজু করছিলেন। দুপুর ১টা ২০ মিনিটের দিকে বাড়িতে ঢুকে ঘরের ভিতরে নৃশংসভাবে তাকে গলা কেটে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। নামাজ শেষ হতে না হতেই শুনি তাকে হত্যা করা হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শী জানান, আইনজীবী আসাদুল হক জুমার নামাজ পড়ার জন্য ওজু করছিলেন। এ সময় বাড়ির দেয়াল টপকে রতনের নেতৃত্বে কয়েকজন দুর্বৃত্ত বাড়িতে ঢুকে প্রথমে ছোরা দিয়ে তার পেটে আঘাত করে। একপর্যায়ে তিনি মাটিতে পড়ে গেলে গলা কেটে হত্যা করা হয়। এরপরই আশপাশের লোকজন রক্তাক্ত ছোরাসহ রতনকে আটক করে। তবে বাকিরা পালিয়ে গেছে। তাৎক্ষণিকভাবে তালা ভাঙতে না পেরে জানালা ভেঙ্গে আমরা অ্যাডভোকেটকে উদ্ধার করে বাইরের বারান্দায় নিয়ে আসি এবং তাজহাট থানা পুলিশকে ডেকে রতনকে তাদের হাতে সোপর্দ করে।

তবে লাশটি পড়েছিল টিনশেড বিল্ডিংয়ের ওই বাড়ির বারান্দার পূর্ব প্রান্তে। যে ঘরে তাকে হত্যা করা হয়েছে বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা দাবি করছিল, সেই ঘরটি দরজা ছিল তালাবদ্ধ। এছাড়াও যে জানালা দিয়ে লাশটিকে বের করার কথা বলা হচ্ছিল, তা এমনভাবে ভাঙ্গা ছিল যা দিয়ে ওই ব্যক্তির লাশ বের করা সম্ভব নয়। এছাড়াও জানালা এবং জানালার পাশে থাকা টেবিলে কোনো ধরনের রক্তের দাগ ছিল না। একটি চাকু পড়েছিল বারান্দার বাইরে মাটির মধ্যে।

রংপুরে করোনা পরিস্থিতির অবনতি হওয়ায় দেড় মাস আগে স্ত্রী সাহেরা এবং ছোট মেয়ে অংকনকে গ্রামের বাড়ি মিঠাপুকুরের বালুয়া মাছুমপুরে পাঠিয়েছিলেন আইনজীবি আসাদুল। ছোট মেয়ে অংকন বগুড়া আজিজুল হক কলেজের অনার্সের ছাত্রী। তার বড় মেয়ে আশা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ালেখার পর এখন অস্ট্রেলিয়াপ্রবাসী। হত্যাকাণ্ডের খবর পেয়ে স্ত্রী ও ছোট মেয়ে ছুটে আসেন বাড়িতে।

নিহতের ছোট মেয়ে অংকন জানান, এর আগেও আটক ব্যক্তি মোবাইল ফোন চুরির জন্য ওই বাড়িতে ঢুকেছিলেন। সে বিষয়ে থানায় মামলা হলেও পুলিশ কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। আজ আমার বাবাকে ঘরে ঢুকে তিনি হত্যা করলো। আমি হত্যার বদলে হত্যা চাই। স্ত্রী সাহেরা খাতুন জানান, করোনার কারণে আমরা গ্রামের বাড়িতে ছিলাম। আমার স্বামীকে এভাবে যারা হত্যা করেছে তাদের আমি ফাঁসি চাই।

রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ জানান, এ হত্যার পেছনের গুরুত্বপূর্ণ তথ্য ইতোমধ্যেই আমরা তদন্তের মাধ্যমে জানতে পেরেছি। বিষয়টি যাচাই-বাছাই করা মাত্রই সেটি মিডিয়াকে জানানো হবে।

আটক রতন নিহতের বাড়ির পাশের জাফর আলী ড্রাইভারের ছেলে। তার সাথে আর কারা ছিলেন তা জানতে জিজ্ঞাসাবাদ করছে পুলিশ।

এদিকে আইনজীবী আসাদুল হককে গলা কেটে হত্যার খবর পেয়ে রংপুর আইনজীবী সমিতির সভাপতি আব্দুল মালেক অ্যাডভোকেটসহ অনেক আইনজীবী নিহতের বাসায় যান। তারা এ ঘটনায় তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ‘প্রকাশ্য দিবালোকে একজন আইনজীবীর হত্যাকাণ্ড আমরা মেনে নিতে পারি না। তিনি অত্যন্ত সৎ মানুষ ছিলেন। আসাদুল হক হত্যাকাণ্ডের পরিপ্রেক্ষিতে আগামী ৭ জুন জরুরি সভা করে বৃহত্তর কর্মসূচি দেওয়ার কথা জানান আইনজীবীরা।

About স্টাফ রিপোর্টার

Check Also

বরিশাল সিটি করপোরেশনের ১২ কর্মকর্তা-কর্মচারী বরখাস্ত

দুর্নীতির দায়ে বরিশাল সিটি করপোরেশনের ১২ কর্মকর্তা-কর্মচারীকে স্থায়ীভাবে চাকরিচ্যুত করা হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে তাদের …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *